make money online

অনলাইনে আয় করার ৫টি উপায়

মূল্যস্ফীতির এই সময়ে আপনার মনে হতেই পারে যদি অতিরিক্ত আয় করারা কথা। যদি সময় এবং শক্তি থাকে, তবে আপনি আপনার দক্ষতা এবং আগ্রহ দিয়ে খুব সহযেই একটি অতিরিক্ত আয়ের ব্যবস্থা করতে পারেন।

বঙ্গ-বিক্স একটি তালিকা তৈরি করেছে যেখানে ৫টি সত্যিকারের উপায় তালিকাভুক্ত করা হয়েছে যাতে আপনি বাড়িতে, অনলাইনে বা বাইরে কাজ করে টাকা উপার্জন করতে পারেন। প্রতিটি সম্ভাব্য কাজের জন্য, আমরা শুরু করার জন্য কি দরকার এবং বয়স প্রয়োজন এবং কতদিনে আপনি পেমেন্ট পাবেন এসব বিস্তারিত আলোচনা করেছি। যদিও অধিকাংশ মানুষ দ্রুত টাকা উপার্জন করতে চায়, কিন্তু “ধীর” কাজগুলি উপেক্ষা করবেন না, যেন দীর্ঘদিন ধরে টাকা উপার্জন করতে পারেন এমন একটি আয়ের উৎস তৈরি করুন।

কীভাবে অনলাইনে টাকা উপার্জন করা যায়

চলুন দেখে নেই অনলাইনে টাকা উপার্জন করার ৫টি উপায়

১. ফ্রিল্যান্সিং করুন

অনলাইনে ফ্রিল্যান্স কাজ করে অর্থ উপার্জন করুন। এই ধরনের কাজ পাওয়া যায় Upwork, Fiverr এবং Freeleancer.com এর মত ওয়েবসাইট থেকে। এই সাইটগুলো আপনাকে লেখালেখি, প্রোগ্রামিং, ডিজাইন, মার্কেটিং, ডাটা এন্ট্রি এবং একটি ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসাবে কাজ করার সুযোগ দেবে। ফ্রিল্যান্সিং যে কোন ধরনের কাজ করলেও, আপনি যে ধরনের কাজ করছেন তার মানসম্পন্নতা ধরে রাখতে হবে যাতে আপনি কত টাকা চার্জ করবেন তা নিজেই নির্ধারন করতে পারেন।

প্রয়োজনীয় তথ্যঃ

Upwork আপনার প্রোফাইলটি ২৪ ঘন্টার মধ্যে অনুমোদন করবে। তবে মনে রাখবেন যে প্রথম ফ্রিল্যান্স গিগ বানানোর জন্য সময় লাগতে পারে।

সাইটের উপর ভিত্তি করে পেমেন্ট বিভিন্ন হতে পারে। Upwork এ আপনি কাজ জমা দেয়ার পরে ক্লায়েন্ট ও আপনি সম্মত হলে বিলিং পিরিয়ডের ১০ দিনের মধ্যে পেমেন্ট পেয়ে যাবেন। Fiverr এ কাজ সম্পন্ন হওয়ার পরে পেমেন্ট পাওয়া যায়, কিন্তু ১৪ দিনের মধ্যে ফান্ড উত্তোলন করা যায় না।

Upwork এবং Fiverr কাজ করতে কমপক্ষে 18 বছর বয়স হতে হবে। এবং Freelancer.com ব্যবহারকারীদের কমপক্ষে ১৬ বছরের হতে হবে।

২. অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং

যদি আপনি একজন ব্লগার হন এবং সেখানে পর্যাপ্ত ভিজিটর পান, তবে আপনি একটি অ্যাফিলিয়েট নেটওয়ার্কে যোগদান করে টাকা উপার্জন করতে পারেন। এখানে অ্যাফিলিয়েট অর্থাৎ আপনার সাইট থেকে ক্লিক করে পার্টনার সাইটে প্রবেশ করলে এবং সেখানে কিছু কিনলে পার্টনার সাইট আপনাকে একটি কমিশন প্রদান করবে। কিছু ব্লগাররা এই উপায়ে অনেক টাকা উপার্জন করে।

প্রথম প্রথম আপনার সাইটের ভিজিটর সংখ্যার বৃদ্ধিতে একটু সময় লাগতে পারে। ব্লগ টেমপ্লেট দিয়ে সাইট তৈরি করা সহজ। তবে আপনাকে নিয়মিত কন্টেন্ট তৈরি করতে হবে। যেকোনো বয়সের যেকেউ এই কাজ করতে পারেন।

৩। পিডিএফ বই পাবলিশ করুন

আপনি যদি একজন লেখক হন, তবে আপনি আমাজন কিন্ডলে ডিরেক্ট পাবলিশিং ব্যবহার করে আপনার বইটি কিন্ডলে স্টোরে বিক্রি করতে পারেন। এটি একটি মুক্ত প্রকাশনা প্ল্যাটফর্ম, এবং আপনি প্রতিটি বইয়ের বিক্রি মূল্যের জন্য রয়াল্টির হিসেবে তার উপর অর্থ উপার্জন করতে পারেন যা সর্বাধিক ৭০% হতে পারে। আপনার বই লিখুন, একটি স্পষ্ট বর্ণনা দিন এবং আপনার ম্যানুসক্রিপ্টটি আপলোড করুন। দাম নির্ধারণ করুন এবং দেখুন কি পরিমান বিক্রি হয়।

৪। আপনার তোলা ছবি বিক্রি করুন

আপনার তোলা শখের ছবিগুলি Fine Art America এর মত বিভিন্ন সাইটে বিক্রি করতে পারেন। এই সাইটগুলির মাধ্যমে আপনি আপনার ছবি প্রিন্ট, টি-শার্ট, ফোন কেস এবং অন্যান্য জিনিস হিসাবে বিক্রি করতে পারেন। ফটোগ্রাফারদের জন্য অন্যান্য মার্কেটপ্লেস সমূহ হলো SmugMug, 500PX এবং PhotoShelter। কিছু সাইটে সাবস্ক্রিপশন প্রয়োজন হতে পারে কিন্তু ক্লাউড স্টোরেজ থেকে পাসওয়ার্ড সংরক্ষিত গ্যালারিস এবং কাস্টমাইজড ওয়েবসাইট প্রদানের মতো সুবিধা আছে।

এসব সাইটে ছবি আপলোড করার পর ক্রেতারা আপনার ছবি খুঁজে পাবেন এবং এটি পছন্দ করবেন। আপনার ছবির লাইব্রেরি থাকলে আজকেই অনেক সহজে এটি শুরু করতে পারেন।

৫. Blog বা YouTube চ্যানেল থেকে আয় করুন

আপনার বিষয়বস্তু সম্পর্কিত ভিডিও বা ব্লগ পোস্ট যদি দর্শক আকর্ষণ করে, তাহলে আপনি বিজ্ঞাপন থেকে টাকা উপার্জন করতে পারেন। YouTube পার্টনার প্রোগ্রামে আবেদন করার জন্য 1,000 সাবস্ক্রাইবার প্রয়োজন। আপনি একই বিজ্ঞাপন প্ল্যাটফর্ম Google AdSense ব্যবহার করতে পারেন, যা YouTube এবং Blog উভয় ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। এর মাধ্যমে আপনি আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটে প্রাসঙ্গিক বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে আয় করতে পারেন।

Blog নির্দিষ্ট কোনো ভিজিটর সংখ্যা নেই। আপনি Google AdSense এর পলিসি অনুযায়ী একটি সাইট তৈরি করেই আবেদন করতে পারবেন। এরপরে ভিজিটর অনুযায়ী আপনার আয় যোগ হতে থাকবে।

ইন্টারনেট একটি জগত যা আপনাকে অনলাইনে অথবা বাড়িতে থেকে টাকা উপার্জনের সুযোগ দেয়, তবে অনেকগুলি সন্দেহজনক, যদিও সম্ভবতঃ সম্পূর্ণ প্রতারণা। যেকোনও “সুযোগ” এর জন্য যদি আগাম ফি দিতে বলে, সার্টিফিকেশনের জন্য টাকা চায়, আপনার সোশ্যাল সিকিউরিটি নম্বর বা ক্রেডিট কার্ড নম্বর প্রয়োজন বলে চায় তাদের থেকে সাবধান থাকুন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *